বুধবার, ০৫ অগাস্ট ২০২০, ০৪:১৮ অপরাহ্ন

সৌন্দর্য্ চোখে না দেখলে বোঝা যাবেনা

সংবাদদাতার নাম
  • প্রকাশ সময় : শুক্রবার, ৫ জুন, ২০২০
  • ১১৪ দেখেছেন

হিল্লোল সরকারঃ রৌমারি বিল জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলার ঝাউগড়া ইউনিয়নে অবস্থিত । এই বিলের দুই পাশে দুটি গ্রাম কাপাসহাটিয়া ও শেখসাদি তার পশ্চিম অংশে টুপকার চর , ঘোষের পাড়া । দক্ষিনে যমুনা – ব্রক্ষ্মপুত্রের শাখা নদী ঝিনাই । ঝিনাই নদীর পাড়ে আড়ংহাটি গ্রাম । জামালপুর শহরের গেটপাড় থেকে হাজিপুর ও শহরের পাচরাস্তা মোড় থেকে ঝাউগড়া হয়ে সিএনজি অথবা অটোরিক্সা ,মটরসাইকেলে সহজেই আসা যায় । বর্ষায় বিলটির আয়তন অনেক গুন বেড়ে যায় । তার সৌন্দর্য্ চোখে না দেখলে বোঝা যাবেনা । বর্ষাকাল ব্যতিত অন্য ঋতুতে বিলের সৌন্দর্য ভিন্ন রকম দেখা যায় দিগন্ত জুড়ে কখনো সবুজ , সোনালী কখনো হলুদ শষ্যের মাঠ । শীতকালে নানা রকম পরিযায়ী পাখিদের মিলন ঘটে । এই বিল মাছ , পাখি অন্যান্য জলজ প্রানির অভয় আশ্রম । বিলে জীববৈচিত্র্যের অন্যতম হলো বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ও পাখি । চখা-চখী , পান মুরগি ,শামুককেচা, সরালি , বক, মাছরাঙা , পাতিমাছরাঙা , বালিহাঁস , সারস , ডাহুক , পানকৌড়ি , সাদাচিল , ঈগল , সঙ্খচিল । অন্যান্য প্রানিদের মধ্য , বিভিন্ন প্রজাজির সাপ , কচ্ছপ , কাকড়া, গুইসাপ , উদবিড়াল , দুই প্রজাতির স্তন্যপায়ি , উভয়চর প্রানি ও নানা ধরনের জলজ উদ্ভিদ দেখা যায় ।বর্ষায় রৌমারি বিলের সৌন্দর্য্ বেড়ে যায় । বর্ষাকালে বিল ভ্রমনের জন্য ছোট নৌকা , ইন্জিল চালিত নৌকা, পালতোলা নৌকা ভাড়া পাবেন । বিলে সারা বছর মাছ পাওয়া যায় । জেলেরা নানা কায়দায় নৌকা ব্যবহার করে জাল ফেলে মাছ শিকার করে । রাতের বেলাও মাছ শিকারিরা হেজাক , টর্চ , কেরোসিনের বড় কুপি জালিয়ে মাছ শিকার করে থাকে। জোস্না রাতেও বিলে ঘুরতে পারবেন । বিলে ঘুরতে এসে আপনি তাজা মাছ ও খাটি দুধ কিনতে পারবেন । প্রতি বছর বিলে স্থানীয়দের উদ্যেগে নৌকা বাইচ আয়োজন করা হয় । হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে সে সময় । ইচ্ছা করলে বিলের কাছাকাছি ঐতিহাসিক গান্ধী আশ্রম ও মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘর পরিদর্শন করতে পারবেন ।এখানে নানাধরনের খাবার পাওয়া যায় ।এ অঞ্চলে ঐতিহ্যগত ভাবে লাঠি খেলা , হাডুডু ,সারিগান , পালাগান , ধুয়া , বাউল গানরে প্রচলন আছে ।বর্ষাকাল ব্যতিত অন্যসময় বিলের কিছু অংশ বাদে কৃষি জমিতে পরিনিত হয় । দিনের শেষে নৈসগির্ক নিরবতার মধ্যে বিলের কর্মময় কৃষক জেলেরা যখন ঘরে ফিরে যায় সে সময় সুর্যাস্ত দেখতে পাবেন । পশ্চিম আকাশে রক্তিম সুর্যের আলোয় বিলের পানি রঙিন হয়ে উঠে । বিলের তীরে দাড়িয়ে সুর্যাস্তের এক মনমুগ্ধকর সৌন্দর্য দেখতে ভুলে যাবেন না । অস্তগামী সুর্যের লালটিপ কপালে পরে পৃথিবী যেন তখন নতুন বউ সাজে ।

লেখকঃ মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘরের স্ট্রাটি ও সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীতে আরোও সংবাদ
Copyright BY

themesba-lates1749691102